Ebook + PDF Easy GK GS Quiz
সাহিত্যের ইতিহাস BA MA বাংলা Question-Paper
WBCS Topic School Join Telegram

Ads Area

ডাকাতের মা সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন উত্তর





'ডাকাতের মা' -- সতীনাথ ভাদুড়ী

গল্পগ্রন্থ-- 'চকাচকী' গল্পগ্রন্থ

একাদশ শ্রেণির এই পাঠ্য গল্পটি থেকে গুরুত্বপূর্ণ সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন এবং উত্তর নিচে আলোচনা করা হলো। পরীক্ষা উপযোগী এই প্রশ্নোত্তরগুলি অনুশীলন করলে পরীক্ষা দেওয়া অনেক সহজ হবে।

অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

১। ডাকাতের মায়ের ঘুম পাতলা হতে হয় কেন ?

= রাত-বিরেতে কখন সৌখীর মায়ের ঘরের দরজায় টোকা পড়ে তার ঠিক নেই তাই ডাকাতের মায়ের ঘুম পাতলা হতে হয়।

২। সৌখীর বাপের দলের একজন পুলিশের হাতে ধরা পড়বার পর নিজের হাতে জিভ কেটে ফেলেছিল কেন ?

= কারণ- সৌখীর বাপের দলের কারো সম্বন্ধে পুলিশের কাছে যাতে কিছু না বলতে পারে সেই কারণে।

৩। সৌখীর এবারকার বউটার শরীর ভেঙে গিয়েছে কেন ?

= সৌখীর ছেলে হবার পর তার বউয়ের শরীর ভেঙে পড়েছিল।

৪। একবার সৌখী তার মাকে খুব মেরেছিল কেন ?

= একবার সৌখী রাতে বাড়ি ফিরে দরজায় টোকা মেরেও মায়ের ঘুম ভাঙেনি, তাই সে তার মাকে খুব মেরেছিল।

৫। হাতি পাঁকে পড়লে ব্যাঙেও লাথি মারে’- এর অর্থ কী ?

= শক্তিশালী ব্যাক্তি কোনো বিপদে পড়লে তাকে নিয়ে দুর্বলেরা মশকরা শুরু করে।

৬। পুলিশ দেখে ভয় পাওয়ার লোক সে নয়’ – কার কথা বলা হয়েছে ?

= সৌখীর মায়ের কথা

৭। সৌখী ৯০ টাকা রোজগার করে এনেছে কীভাবে ?

= জেলখানার গুদামে কাজ করে জেলের ঠিকাদারদের কাছ থেকে ৯০ টাকা রোজগার করে এনেছে।

৮। দু-তিন মাস সাজা হয় কাদের ?

= কদুচোর’দের।

৯। সে পাঁচিল ভাঙতে বুড়ির বিশেষ অসুবিধা হল না’- কারণ ?

= পাঁচিলটি দুই-আড়াই ফুট উঁচু করা হয়েছে এবং পাঁচিলের নিচে মাটি-ইট পড়ে থাকায় বুড়ির পাঁচিল ভাঙতে অসুবিধা হয়নি।

১০। সৌখীর মা আগে কী ছিল ?

= ডাকাতের বউ।

১১। আগের বউটার শরীর কেমন ছিল ?

= ভালো ছিল।

১২। বুড়ি বাড়ি বাড়ি গিয়ে কী বেচে ?

= খই-মুড়ি

১৩। লোটা বাড়ির কী ?

= লক্ষ্মী

১৪। সৌখী কত বছর জেলে গেছে ?

= পাঁচ বছর।

১৫। এর আগে সৌখীর কতবার কয়েদ হয়েছে ?

= দু-বার।

১৬। সৌখী জেলখানায় কাদের সঙ্গে কথা বলে না ?

= কদুচোরদের সঙ্গে।

১৭। মেয়ে মানুষকে নিয়ে টানাটানি করছেন কেন’- কে কাকে বলেছে ?

= সৌখী, দারোগাবাবুকে বলেছিল।

১৮।বুড়ি কার পায়ের উপর মাথা কুটছিল ?

= দারোগাবাবুর পায়ের উপর।

১৯। নতুন কম্বল মুড়ি দিয়ে শুয়েও সৌখীর মায়ের ঘুম আসছিল না কেন ?

= কারণ পরদিন সকালে সৌখীকে কী খেতে দেবে এই চিন্তায়।

২০। বুড়ি নতুন কম্বল কোথায় পেয়েছে ?

= সৌখী দিয়েছিল।

২১। চোরাই মাল জেনেই কিনেছিস’ – চোরাই মালটি হলো--------?

= লোটা।

২২। সৌখীর মা সৌখীর দলের অনুচরদের সম্পর্কে কী বলেছে ?

= তার ছেলের দলের অনুচররা ছিঁচকে চোর,তালপাতার সেপাই।

২৩। সৌখী মেয়াদ শেষের আগেই জেল থেকে বাড়ি ফিরেছিল কেন ?

= সৌখীর কাজ দেখে লাটসাহেব খুশি হয়েছিলেন, তাছাড়া হেড জমাদার সাহেবকে সৌখী টাকা খাইয়েছিল।

২৪। সৌখী যখন ঘরে ফেরে তখন সৌখীর স্ত্রী-পুত্র কোথায় ছিল ?

= সৌখীর শ্বশুর বাড়ি।

২৫। গল্পে উল্লিখিত গন্ধগোকুল আসলে কী ?

= খট্টাশজাতীয় প্রাণী।

২৬। টকটক করে দু’টোকার শব্দ থেমে থেমে তিনবার হলে কী বুঝতে হবে ?

= সৌখীর দলের লোক টাকা দিতে এসেছে।

২৭। এর আগেরবার সৌখী জেল থেকে কী এনেছিল ?

= একখানা কম্বল।

২৮। জেলে থাকাকালীন সৌখীর ডিউটি কোথায় ছিল ?

= জেলখানার গুদামে।

২৯। সৌখী এর আগে কতবার জেল খেটেছে ?

= দু-বার।

৩০। সৌখী বাটুয়াটা কোথায় রেখে গিয়েছিল ?

= খাটিয়ার উপর।

৩১। দিনকাল পড়েছে অন্যরকম’—একথা বলার কারণ কী ?

= সৌখীর মা এই উক্তিটি করেছে।পুলিশকে ঠেকানো যায় কিন্তু দলের লোকদের বিশ্বাস করা যায় না। ক্ষমতার লোভে তারা যেকোনো কাজ করতে পারে। দলের অনুচররা আজকাল তাদের বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে।

৩২। হায়-রে কপাল’—কার কপালের কথা বলা হয়েছে ?

= এখানে সৌখীর দ্বিতীয় পত্নীর কথা বলা হয়েছে। কেননা রোগা শরীর নিয়ে সে অন্যের বাড়িতে খাটতে পারে না।

৩৩। সৌখীর মা-বউকে কী কেউ বিশ্বাস পায়!’—কোন প্রসঙ্গে এই উক্তি করা হয়েছে ?

= সৌখীর মা এই উক্তি করেছে। যেহেতু সৌখী ডাকাত দলের সঙ্গে যুক্ত সেজন্য কেউ সৌখীর মা-বউকে বিশ্বাস করে না। একারণে লোকের বাড়িতে তাদের কাজও জোটে না।

৩৪। ঘুম আর আসতে চায় না’—ঘুম না আসার কারণ কী ?

= সৌখী বহুরাত পর্যন্ত বাড়ির বাইরে থাকে। তার ছেলে কড়া মেজাজের। সৌখীর মা ঘুমিয়ে পড়লে ছেলে অশান্তি করবে ভেবে সৌখীর মায়ের ঘুম আসতে চায় না।

৩৫। প্রতি মুহূর্তে বুড়ি এই প্রশ্নেরই ভয় করছিল’—বুড়ি কে? সে কেন ভয় করছিল ?

= ডাকাতের মা’ গল্পের বুড়ি হলো সৌখীর মা। সৌখী জেল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়ি এসে তার বউ-ছেলেকে না দেখতে পেয়ে জিজ্ঞাসা করবে যে তার বউ-ছেলে কোথায় গিয়েছে। প্রতি মুহূর্তে বুড়ি এই প্রশ্নেরই ভয় করছিল।

৩৬। তার বাড়ি ফিরবার আনন্দ অর্ধেক হয়ে গিয়েছে’—এখানে কার কথা বলা হয়েছে? তার আনন্দ অর্ধেক হয়ে গিয়েছিল কেন ?

= এখানে সৌখীর কথা বলা হয়েছে। সৌখী বাড়ি ফিরে তার বউ-ছেলেকে না দেখতে পেয়ে তার আনন্দ অর্ধেক হয়ে গিয়েছিল।

৩৭। সেই হয়েছে বুড়ির মস্ত ভাবনা’—ভাবনার কারণ কী ?

= ভাবনা সৌখীর মায়ের। সৌখী অনেকদিন পর জেল থেকে রাত্রিবেলায় বাড়ি এসেছে। পরদিন সকালে সৌখীকে কী খেতে দেবীই নিয়ে বুড়ির মস্ত ভাবনা।

৩৮। সৌখী তার মাকে বেদম মেরেছিল কেন ?

= একবার সৌখী রাত-দুপুরে বাড়ি এসে দরজায় টোকা মেরেছিল। কিন্তু কোনো শব্দ না পেয়ে সৌখী তার মাকে বেদম মেরেছিল।

৩৯। ডাকাতের মায়ের ঘুম পাতলা না হলে চলেনা কেন ?

= কারণ রাত-বিরেতে সৌখী ও তার দলের লোক এসে দরজায় টোকা মারতে পারে।

৪০। বুড়ির বুক কেঁপে উঠল’—কেন?

= সৌখীর মা মাতাদিন পেশকারের বাড়ি থেকে লোটা চুরি করে বাজারে চোদ্দ আনায় বিক্রি করেছিল।ফলে পরদিন সকালে বাড়িতে দারোগা-পুলিশ আসতে দেখে বুড়ির বুক কেঁপে উঠেছিল।

৪১। সৌখীর কত পয়সায় লোটা বিক্রি করেছিল ?

= চোদ্দো আনা পয়সায় লোটা বিক্রি করেছিল।

৪২। বুড়ির বিশেষ অসুবিধা হলো না’—অসুবিধা হলো না কেন ?

= মাতাদিন পেশকারের বাড়িতে যে পাঁচিল গাথা হচ্ছিল সেই পাঁচিলের নিচে মাটি ও ভাঙা ইট পড়েছিল তাই সেই পাঁচিল টপকাতে বুড়ির বিশেষ অসুবিধা হয়নি।

৪৩। সারা পাড়ায় কিসের গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছিল ?

= পোড়া আলু চচ্চড়ির গন্ধ।

৪৪। তখন ত মাথা হেঁট হয়নি তার’—কখন মাথা হেঁট হয়নি ?

= পাঁচ-সাত বছর আগে একবার পুলিশ ভোররাত্রে সৌখীর বাড়ি ঘেরাও করেছিল, বন্দুকের খোঁজে। সেই সময় সৌখীর মায়ের মাথা হেঁট হয়নি।



একাদশ শ্রেণির অন্যান্য লেখা 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Below Post Ad

Ads Area